Skip to main content

শ্রমিকদের আন্দোলনে উত্তাল রােজকান্দি চা - বাগান , সড়ক অবরােধ

শ্রমিকদের আন্দোলনে উত্তাল রােজকান্দি চা - বাগান , সড়ক অবরােধ

রােজকান্দি চা - বাগানের গেটের সামনে শ্রমিকদের অবরােধ ।
রােজকান্দি চা - বাগানের গেটের সামনে শ্রমিকদের অবরােধ ।

শিলচর ১০ জুন : বাগান ম্যানেজারের দীর্ঘ পঁয়ত্রিশ বছরের । অপশাসনে অতিষ্ঠ হয়ে অবশেষে আন্দোলনে নামলেন । বড়জালেঙ্গার সাহাপুর ও মেছিপুর দুই ফাঁড়ি বাগান সহ রােজকান্দি চা - বাগানের শ্রমিকরা । সােমবার কাজে যােগ না । দিয়ে তিন বাগানের প্রায় ছয় হাজার শ্রমিক অনির্দিষ্টকালীন কাজ বন্ধের ডাক দিলেন । এদিন বাগান পথের মূল গেটে

তালা ঝুলিয়ে তীব্র প্রতিবাদ জানালেন । দাবি তুললেন বাগান । ম্যানেজার ঈশ্বরভাই উবাদিয়ার অপসারণের । এদিকে , বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শ্রমিকদের ক্ষোভের পারদও বাড়তে থাকে । একসময় শিলচর ধােয়ারবন্দ সড়ক অবরােধ করে বসেন । সদর ওসি গােস্বামী আন্দোলনকারীদের বুঝিয়ে অবরােধ মুক্ত করতে সক্ষম হন । সড়ক অবরােধ উঠলেও আন্দোলনকারী শ্রমিকরা তাদের সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়াননি । চালিয়ে যান আন্দোলন ।

শ্রমিকদের আন্দোলনে উত্তাল 


শ্রমিকদের আন্দোলনে উত্তাল 

এদিন প্রথমে রােজকান্দি বাজারে শ্রমিকরা জমায়েত হন । প্রায় দুই হাজার শ্রমিকের উপস্থিতিতে এক প্রতিবাদী সভা অনুষ্ঠিত হয় । সভায় বক্তব্য রাখেন বাবুল কুমার । । এরপর সেখান থেকে মিছিল করে হাজার হাজার শ্রমিক মূল গেটে হাজির হন । এবং মূল । গেটে তালা ঝুলিয়ে দেন শ্রমিকরা । আন্দোলন চলাকালীন শ্রমিক কুন্দর গােস্বামী বলেন , পরাধীন ভারতে ইংরেজরা যেভাবে শাসন চালাচ্ছিল সেভাবে ম্যানেজার বাগানের । শ্রমিকদের উপর শাসন চালাচ্ছেন । শ্রমিকদের অধিকার বলে কিছুই নেই । বিয়ে থেকে শুরু করে সমস্ত কাজ বাগান ম্যানেজারের অনুমতির ওপর নির্ভর করে । শুধু তা নয় চরম । নির্যাতন করা হচ্ছে শ্রমিকদের উপর । সরকারি সুযােগ সুবিধা কেড়ে নিচ্ছেন তিনি । ইন্দিরা আবাসগুলাে কোয়ার্টার করে কাজ না করা শ্রমিকদের তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে । বিপিএল বিদ্যুৎ সংযােগ বিচ্ছিন্ন করা হচ্ছে । তিনি আরও বলেন , কোনও ব্যক্তিকে বাইরে থেকে বিয়ে করতে হলে প্রতি গাড়ি একশ টাকা করে দিতে হয় গেটে । বাবুল - কুমার বলেন , সরকার বিশুদ্ধ পানীয়জলের জন্য একটি প্রকল্প বসিয়েছিল , হাইডেনও । দিয়েছিল কিন্তু ম্যানেজার সব কেটে শুধু তার হাইডেন চালু রাখেন । তলব পেতেও । সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে বলে জানান । কোনও শ্রমিক , সপ্তাহে একদিন কাজ বন্ধ । করলে ছয়দিনের তলব আর সহজে মেলে না । এক অরাজকতা চালাচ্ছেন তিনি । দীর্ঘ । পয়ত্রিশ বছর এমন শাসনে শ্রমিকরা অতিষ্ঠ হয়ে ওঠেছেন । বাগান মালিক রাধেশ্যাম । বলকারের ছেলেরা এলে শ্রমিকরা কথা বলতে চাইলে সুযােগ দেওয়া হয় না বলে ক্ষোভ । জাহির করেন বাবুল বাগতি । হারাধন কর্মকার জানান , রাত দশটার পর গেট বন্ধ করা । হলে পরে জরুরি কোনও কাজেও আর গেট খােলা হয় না । এতে মেডিক্যাল চিকিৎসা না । পেয়ে পাঁচ - ছয় জন গর্ভবতী মহিলা প্রাণ হারিয়েছেন । | শ্রমিকদের পুঞ্জিভূত ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটলে মাসদিন আগে স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা পাইওনিয়ার সঙ্গে ম্যানেজার শ্রমিকদের নিয়ে এক সভায় বসেন । সভায় চৌদ্দ দফা দাবি  তুললে তিনি পূরণ করবেন বলে মেনে নেন । কিন্তু একমাস অতিক্রম করার । পরও কোনও দাবি পূরণ হয়নি । তাই ম্যানেজারের অপসারণ চেয়ে কাজে যােগ না দিয়ে । আন্দোলনে নেমে পড়েন শ্রমিকরা ।

Comments